বিদেশ ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

The name of allah is in Viking clothes
ভাইকিংদের কাপড়, ছবি : বিবিসি

প্রাচীন ভাইকিংদের সমাধি থেকে আরবি লেখা কাপড় আবিষ্কার করেছে সুইডেনের গবেষকরা। এই আবিষ্কার স্ক্যান্ডেনেভিয়ায় ইসলামের প্রভাব নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে বলে মনে করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক তারেক হুসেইন।

ভাইকিংদের সময়কার সমাধির কাপড়ের মতো অবহেলায় থাকা বিভিন্ন জিনিসপত্র শাতাধিক বছরের ধরে সংরক্ষণ করে আসছে সুইডেন। কিন্তু নবম ও দশম শতকের কবর থেকে উদ্ধার করা এ কাপড় নিয়ে করা গবেষণায় দেখা গেছে, মুসলিম বিশ্বের সাথে ভাইকিংদের তখন থেকেই একধরনের সম্পর্ক রয়েছে।

আবিষ্কার করা কাপড়ে রেশমী ও সোনালী সুতায় ‘আল্লাহ’ ও ‘আলী’ শব্দ লেখা রয়েছে। ঊনিশ ও বিংশ শতাব্দির মাঝামাঝি সময় থেকে সুইডেনের উপসালার বিরকা ও গামলায় বিভিন্ন সমাধি ও ডুবন্ত জাহাজে অনুসন্ধান করছে দেশটির সরকার।

নারী-পুরুষের সমাধিতে প্রাপ্ত কাপড় নিয়ে গবেষণায় উপসালা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেক্সটাইল প্রত্নতাত্ত্বিক আনিকা লার্সনের এই সাফল্যের পর মধ্য এশিয়া, পারস্য ও চীন থেকে পাওয়া টুকরো টুকরো বিভিন্ন জিনিসপত্রের প্রতি তিনি আরো আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

লার্সন বলেন, জ্যামিতিকভাবে অতি ক্ষুদ্র এ নকশার উচ্চতা ১.৫ সেন্টিমিটারের বেশি নয়। এ ধরনের নকশা স্ক্যান্ডিনেভিয়া অঞ্চলে এর আগে দেখা যায়নি। আমি যখন এসব কাপড়ের মধ্যে কোনো ধরনের মিল পাচ্ছিলাম না, তখন স্মরণের চেষ্টা করলাম স্পেন ও মরিসে দেখা কাপড়ের সাথে এর মিল কোথায়?

দুর্বোদ্ধ যে ধাঁধাঁ

কাপড়ের মধ্যে কোনো ধরনের মিল না পেয়ে প্রথমেই লার্সন বুঝতে পারলেন আসলে এসবের সাথে ভাইকিংয়ের কারুকার্যের সব নকশার কোনো মিল নেই। ঠিক সেই সময় এর মধ্যে আরবি লিপি খুঁজে পান তিনি। যেখানে কেবল দুইটি শব্দই লেখা ছিলো। সেই শব্দ দুটির মধ্যে একটি তাঁর ইরানি সহকর্মীর সাহায্যে চিহ্নিত করেন। শব্দটি ছিলো ‘আলী’; যিনি ইসলামের চতুর্থ খলিফা। তবে আলী ছাড়া সেখানে থাকা অন্য শব্দটি ঠিক কী, তা উদ্ধার করা আরো জটিল ছিলো।

দুর্বোদ্ধ এ ধাঁধাঁ ভাঙতে অতীতে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা নিয়ে বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে পরীক্ষানিরীক্ষা করেন। আর ঠিক তখনই তিনি আয়নার উপরে লেখা আল্লাহ শব্দটি খেয়াল করেন বলে জানান লার্সন।

আয়নার রিফ্লেক্টে দেখা ‘আল্লাহ’ শব্দ

তিনি এখন পর্যন্ত ১০০ টুকরো জিনিসের মধ্য থেকে ১০টি নাম উদ্ধার করেছেন এবং সেগুলো প্রায় একই সময়কার। তার কাজ এখনও অব্যাহত রয়েছে। এসবের মধ্যে কিছু মুসলমানদের কবর রয়েছে, যেগুলো দেখে মনে হয়, তারা হয়তো ভালোভাবে শাসন করতে পারেনি।

তিনি বলেন, আমরা অন্যান্য ভাইকিংদের সমাধি খনন করে এবং তাদের ডিএনএ পরীক্ষা করে জানতে পেয়েছি যে, তাদের কিছু মানুষকে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে, যারা মূলত পারস্য থেকেই এসেছিলো। আর পারস্যে তখন ইসলামি শাসন ব্যবস্থা ছিলো।

যাইহোক, এটার মাধ্যমে দেখা গেলো ভাইকিংদের সমাধির কাপড় ইসলামি ধারণায় তৈরি এবং সেখানে অভ্যন্তরীণ জীবন ও মৃত্যুর পর স্বর্গের ধারণার ছাপ ছিলো।

শুরুর ইতিহাস

ভাইকিং এবং মুসলিম বিশ্বের মধ্যে যে একটা দীর্ঘ ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে সেটা প্রমাণিত। আর সেটা ঐতিহাসিকভাবে আরো প্রতিষ্ঠিত হয়েছে উত্তর গোলার্ধের বিভিন্ন দেশে ইসলামি কয়েন আবিষ্কারের ফলে। দুই বছর আগে সুইডেনের বার্কাতে একজন নারীর সমাধি থেকে একটি রুপার আংটি আবিষ্কার করা হয়। যেখানে আংটির পাথরের উপরে আল্লাহ শব্দটি খোদাই করে লেখা ছিলো। যেটা ইরাকের কুফা শহর থেকে লেখা ৭ম শতাব্দির কোরানে লেখা লিপির সাথে মিলে যায়।

তবে লার্সনকে এই আবিষ্কার আরো উদ্যোমী করে তুলেছে। কারণ এটি প্রথম ঐতিহাসিক একটি জিনিস যেখানে আলি শব্দটি উল্লেখ করা হয়েছে। যা স্ক্যান্ডিনেভিয়ায় আগে কখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, আল্লাহর নামের পাশে আলীর নাম বার বার উচ্চারিত হয়েছে। আমি জানতাম মুসলিমদের মধ্যে সংখ্যালঘু শিয়াদের কাছে আলীকে অনেক সম্মান করা হয়। আর তার সঙ্গে এদের একধরনের সম্পর্ক রয়েছে।

আলী ইসলামের নবী মুহাম্মদের চাচাতো ভাই এবং তার জামাতা ছিলেন। যিনি তার মেয়ে ফাতিমাকে বিয়ে করেন। মুহাম্মদ মারা যাবার পর তিনি ইসলামের চার নেতারও একজন ছিলেন। সুন্নি ও শিয়া উভয় মুসলিমরাই মনে করেন মুহম্মদের একজন একান্ত সহচর ছিলেন আলী। তবে শিয়ারা তাকে অনেক সম্মান দেন। তারা তাকে নবী হিসেবেই দেখেন।

লন্ডনের ইসলামিক কলেজের ইসলামিক স্টাডিজের প্রগ্রাম প্রধান আমির ডি মার্টিনো বলেন, এখানে আলীর যে ব্যবহার সেটার সাথে শিয়াদের একটা সম্পর্ক থাকতে পারে।

তবে ‘ওলি আল্লাহ’ যার মানে ‘আল্লাহর বন্ধু’ ছাড়া এখানে কেবল আলী শব্দটি রয়েছে যেটা প্রমাণ করছে এরা মূলধারার শিয়ামতালম্বী নয়। তার মানে এখানে কোনো ধরনের ভুলভ্রান্তি রয়েছে বলে মনে করেন ব্রিটিশ শিয়া ম্যাগাজিন ‘শিয়া টুডে’র চিফ এডিটর ডি মার্টিনো।

সূত্র : বিবিসি

আপনার মন্তব্য