ক্রীড়া ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

North Korea
ফাইল ছবি

কিম জং-উন, যিনি উত্তর কোরিয়ার সর্বময় শাসক। তার কঠোর শাসনে পরিচালিত হয় পুরো দেশ। সারা দুনিয়া জানে উত্তর কোরিয়ার এই শাসকের খেপাটে রুপ সম্পর্কে। 

রেগে গেলে তিনি একরাশ হিংস্র কুকুরের মাঝে অপরাধীকে ছেড়ে দেন। তারপর, ওই ব্যক্তিকে খুবলে খুবলে খায় সেই কুকুরের দল। তাই দেখে হাততালি দেন কিম। এ ছাড়া হাজারো যন্ত্রণাদায়ক শাস্তিপদ্ধতি আছে সে দেশে।

এমনই এক শাস্তির ভয়ে কাঁপছে উত্তর কোরিয়ার ফুটবলাররা। চলতি যুব বিশ্বকাপে একটা ম্যাচও জিততে পারেনি তারা। মঙ্গলবারের ম্যাচেও হারের ধারাবাহিকতা ধরে রাখল তারা। কোচিতে ব্রাজিলের কাছে ০-২ গোলে পরাজয় হয়েছে উত্তর কোরিয়ার। শুধু বাকি লিগের শেষ ম্যাচ।

ইতিমধ্যেই পিয়ংইয়ং ফেরার বিমান টিকিট বুকিং হয়ে গিয়েছে। দেশে ফিরলে কী হবে, সেই আতঙ্ক তাদের তাড়া করছে। কঠিন শাস্তি যে হবেই তা বুঝেই গিয়েছেন কোরীয় প্লেয়াররা।

ঠিক যেমনটা ঘটেছিল ২০১০ সালের বিশ্বকাপে। গ্রুপ লিগ থেকে ছিটকে গিয়ে দেশে ফিরেছিলেন উত্তর কোরিয়ার প্লেয়াররা। এরপরই বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম দাবি করেছিল, উত্তর কোরিয়ার জাতীয় দল ও কোচকে নাকি পরাজয়ের শাস্তি হিসেবে ইট বইতে হয়েছিল! 

এবার কি সে রকম শাস্তি হবে? নাকি আরো ভয়ানক কোনো শাস্তি?

আপনার মন্তব্য