ক্রীড়া ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

ছবি: সংগৃহীত

ফুটবলপ্রেমীদের জন্য ব্যাপারটা হজম করতে বেশ কষ্টই হবে। আর্জেন্টিনা সমর্থকদের জন্য তো অকল্পনীয় বটে। দুবারের বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টিনাকে ছাড়া একেবারে পানসে ঠেকবে ফুটবলের সবচেয়ে বড় এই আসর। কিন্তু সেই আশঙ্কা বারবার সামনে নিয়ে আসছেন খোদ আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা। শুক্রবার ভোরে শুরু ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র করে ফুটবল বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ার শঙ্কায় থাকল আর্জেন্টিনা।

লিওনেল মেসির সঙ্গে আক্রমণভাগে কোচ সাম্পাওলি রাখেন স্ট্রাইকার দারিও বেনেদেত্তোকে। শুরু থেকে আক্রমণ চালায় স্বাগতিকরা। ১৪তম মিনিটে কর্নার থেকে মেসির শট প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে দিক পাল্টায়। ১০ মিনিট পর আনহেল দি মারিয়া নেন লক্ষ্যভ্রষ্ট শট।

৩৮তম মিনিটে মেসির ডি-বক্সের বেশ বাইরে থেকে নেওয়া শট একটুর জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে যায়। দি মারিয়াকে বিরতির সময় বদলে ফেলেন সাম্পাওলি। জাতীয় দলের হয়ে প্রথম ম্যাচ মাঠে নামেন জেনিতের মিডফিল্ডার এমিলিয়ানো রিগোনি।

দ্বিতীয়ার্ধে দুর্দান্ত শুরু করে আর্জেন্টিনা। মেসির বাড়ানো বলে বেনেদেত্তোর শট ঠেকান গোলরক্ষক। ফিরতি বলে মেসি গোল পেতেন যদি প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের পাঁয়ের হালকা ছোঁয়া না লাগতো।

৬৮তম মিনিটে মেসির দারুণ বাড়ানো বল থেকে বেনেদেত্তোর শট ঠেকান গালেসে। ম্যাচের শেষ দিকে বিপজ্জনক জায়গা থেকে মেসির ফ্রি-কিক বাধা পেলে শেষ ভালো সুযোগটাও নষ্ট হয় আর্জেন্টিনার।

বিশ্বকাপের দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বে সেরা চার দল সরাসরি খেলবে আগামী বছরের বিশ্বকাপে। পঞ্চম দলটিকে প্লে-অফ খেলে জিততে হবে। বিশ্বকাপে খেলতে হলে শেষ ম্যাচে একুয়েডরের মাঠে প্রতিকূল পরিবেশে জিতার কোনো বিকল্প রাস্তা নেই মেসিদের।এক ম্যাচ বাকি থাকতে আর্জেন্টিনা আর পেরুর পয়েন্ট সমান ২৫।

আপনার মন্তব্য