বাংলা ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

how can control your kalori
প্রতীকী ছবি

ডা. আলমগীর মতি


আপনি একটু চেষ্টা করলেই ওজনটাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন। আর ক্যালোরি নিয়ন্ত্রণ করে চললে আপনি নিজের স্বাস্থ্যটাকে নিজের আয়ত্বের মধ্যেই রাখতে পারেন। এর জন্য আপনাকে বেশি কিছু করতে হবে না।কেবল খাবারের কিছু বিশেষ অংশ বাদ দিলে খাবার থেকে কমে যাবে অতিরিক্ত ক্যালোরি।

ফাস্টফুডের সঙ্গে মেয়োনেজ ও চিজ এড়িয়ে চলা : ফাস্টফুডে যখন বার্গার কিংবা স্যান্ডউইচ খান তখন অর্ডার দেয়ার আগেই কাউন্টারে বলে নিন যে আপনি মেয়োনেজ ও চিজ খাবেন না। মেয়োনেজ ও চিজ বাদ দিলে ফাস্টফুডের ক্ষতিকর প্রভাব অনেকটাই কমে যায়। সেই সঙ্গে রক্ষা পাওয়া যায় ফ্যাট ও অতিরিক্ত ক্যালোরি থেকে।

রান্নায় অলিভওয়েল ব্যবহার : রান্নায় ঘি, সয়াবিন তেল, ডালডা ইত্যাদি ব্যবহার করবেন না। এগুলোর বদলে বরং অলিভওয়েল ব্যবহার করুন। এতে হৃৎপিণ্ড ভালো থাকবে।

কোমল পানীয়ের বদলে জুস বা পানি : দোকানে গেলে কিংবা গরমের মাঝে বাইরে হাঁটাহাঁটি করলেই কোমল পানীয় খাওয়া হয়। অনেকেই আবার এনার্জি ড্রিঙ্ক খান। এই ধরনের পানীয়গুলো শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। সেই সঙ্গে এগুলোতে ক্যালোরির পরিমাণ অতিরিক্ত বেশি। তাই এগুলোর বদলে ফ্রেশ জুস বা পানি খাওয়ার অভ্যাসটা গড়ে ফেলুন।

চা/কফিতে দুধ ও ক্রিম না খাওয়া : চা কিংবা কফির সঙ্গে চেষ্টা করুন দুধ পরিহার করতে। দুধ চা এমনিতেও স্বাস্থ্যের জন্য কিছুটা ক্ষতিকর। তাই রঙ চা কিংবা ব্ল্যাক কফি খাওয়াটাই ভালো। সম্ভব হলে চিনিও এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।

সালাদে আলু পরিহার করা : অনেকেই ফ্রুট বা ভেজিটেবল সালাদ খেতে ভালোবাসেন। যারা সালাদ খেতে পছন্দ করেন তারা সালাদে আলু ব্যবহার করবেন না। এছাড়াও সালাদ ড্রেসিংও অতিরিক্ত ক্যালোরি থাকে যা শরীরের মেদ বাড়ায়।

মাংসের চর্বিগুলো রান্নার আগেই ফেলে দেয়া : মাংস রান্না করার আগে অবশ্যই অতিরিক্ত চর্বি ফেলে দেয়া উচিত। কারণ অতিরিক্ত চর্বিগুলো রান্নার পর ঝোলের সঙ্গে মিশে যায় এবং তা শরীরে বাড়তি মেদ জমায়।

লেখক : হারবাল গবেষক ও চিকিৎসক

আপনার মন্তব্য