বিনোদন ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

অনন্ত জলিল। ছবি: ইন্টারনেট

সম্প্রতি দুবাইতে একটি হোটেলে থাকা অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করা বেশ কয়েকটি ছবি নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েন চিত্রনায়ক ও ব্যবসায়ী অনন্ত জলিল। এর পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে তার পোশাক নিয়ে সমালোচনার জবাব দেন এই চিত্রনায়ক।

স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, ‘বন্ধুগণ, আসসালামু আলাইকুম। দুবাইতে আমি জুব্বা (Thobe) পরেই গিয়েছিলাম এবং সবখানেই জুব্বা পরেই ঘুরেছি। আমি এখন ইসলামিক পোশাকেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। বুর্জ আল আরব এ ২৮ তলায় ফ্রান্স রেস্টুরেন্টে ফ্রান্সের বায়ারদের সঙ্গে বিজনেস মিটিং ও ডিনারের আয়োজন ছিল। সেখানে ড্রেস কোড নির্দিষ্ট থাকার কারণে সেখানে জুব্বা পরে যাইনি।-আল্লাহ হাফেজ।’

উল্লেখ্য, দুবাইয়ের বুর্জ আল আরব হোটেলে অবস্থানকালে ৭ সেপ্টেম্বর ১৪টি ছবি ফেসবুকে আপলোড করেন অনন্ত জলিল। এসব ছবিতে তাকে ছাড়াও স্ত্রী চিত্রনায়িকা বর্ষা ও তার সন্তানকে দেখা যায়।

এই ছবিগুলোতে দেখা গেছে, তিনি টি-শার্ট, গেঞ্জির ওপর ব্লেজার পরে আছেন। তবে তিনটি ছবিতে পাগড়ি ও আলখেল্লা পরিহিত রয়েছেন। আর তিনটি ছবি তার স্ত্রীর।

এই জনপ্রিয় নায়কের পোশাক নিয়ে সংবাদ পরিবেশন হওয়ায় অনেকেই অবাক হন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন লিখেন, বুঝলাম না একজন মানুষের পোষাক নিয়ে টানাটানি। Md. Motiur Rahman নামের একজন পাঠক লিখেন, “বুঝলাম না, কে কি পরবে এটা তার একান্ত বিষয়।” Mahmudul Hasan Sohel নামের তার শুভাকাাঙ্খি ও ভক্তগন কমেন্টেসে লিখেন, জুব্বা না পরেও ইসলামি জীবন জাপন করা সম্ভব। জুব্বা পরা বাধ্যতামূলক নয়। Asaduzzaman Anta লিখেন, ভাই কে কি বললো তা দেখার বিষয় না, আপনি নিজের গতিতে এগিয়ে যান। Shahriar Afnan নামে একজন লিখেন,“আরে ভাই কাপড় ফেক্ট না,,,, ইবাদাত, আল্লাহভীতি, ঈমান এগুলা থাকা জরুরী।”

আপনার মন্তব্য