বিদেশ ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

mexico-earthquake
ছবি: সংগৃহীত

মেক্সিকোর দক্ষিণ উপকূলে ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬১ জনে পৌঁছেছে। দেশটির কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে শনিবার বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে মেক্সিকো ও আশপাশের আরও ৭টি দেশে সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভূমিকম্পে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মেক্সিকোর তাবাসকো, ওয়াক্সাকা ও চিয়াপাস রাজ্যে ব্যাপক উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এসব অঞ্চলে ধ্বংসস্তূপের নিচে অনেক লোক আটকা পড়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট পেনা নিয়েতো জানান, ভূমিকম্পে ওয়াক্সাকা রাজ্যে ৪৫ জনের মৃত্যুর হয়েছে। এছাড়া চিয়াপাস রাজ্যে ১২ জন ও তাবাসকো রাজ্যে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ভয়াবহ এ ভূমিকম্পে অন্তত ২০০ মানুষ আহত হয়েছে বলেও জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট পেনা নিয়েতো।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ৪৯ মিনিটে মেক্সিকোর দক্ষিণ উপকূলে শক্তিশালী ভূমিকম্পটি অনুভূত হয়। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএসের তথ্য অনুযায়ী, মেক্সিকোর ফিজিজিয়াপান শহরের ৮৭ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ৭০ কিলোমিটার গভীরে ভূমিকম্পটির উৎপত্তি, যেখানে এর মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৮ দশমিক ১।

মেক্সিকো সিটিতে ভূমিকম্পের সময় ঘর-বাড়ি কেঁপে ওঠে। এসময় অনেকে রাস্তায় বেড়িয়ে আসেন। ছুটোছুটি করতে থাকেন নগরের বাসিন্দারা। সে সময় বিদ্যুৎ সংযোগও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

ভূমিকম্পের পর মেক্সিকো, গুয়াতেমালা, এলসালভেদর, কোস্টারিকা, নিকারাগুয়া, পানামা ও হুন্ডুরাসে সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়।

প্যাসিফিক সুনামি ওয়ার্নিং সেন্টার জানিয়েছে, শক্তিশালী এ ভূমিকম্পের প্রভাবে আগামী কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মেক্সিকো উপকূলে সুনামির ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে।

শুক্রবার আঘাত হানা এ ভূমিকম্পটি শক্তির দিক দিয়ে ১৯৮৫ ও ১৯৯৫ সালের ভূমিকম্পের মতো। ওই ভূমিকম্পে প্রাণ হারিয়েছিল মেক্সিকোর হাজার হাজার মানুষ।

আপনার মন্তব্য